সাম্প্রতিক খবর

পিএম-কিষাণ আপডেট ২০২৪ জেনে নিন প্রকল্পের কয়েকটি বিশেষ বৈশিষ্ট্য

PM-Kisan: পিএম-কিষাণ আপডেট ২০২৪
Join Us
Advertisement

প্রধানমন্ত্রী কিষাণ সম্মান নিধি স্কিম (PM-Kisan) হল ভারত সরকার কর্তৃক প্রতিষ্ঠিত একটি উদ্যোগ, আর্থিক সহায়তা প্রদানের মাধ্যমে ক্ষুদ্র ও প্রান্তিক কৃষকদের সমর্থন করার জন্য নিবেদিত। ফেব্রুয়ারী ২০১৯ সালে চালু হওয়া এই স্কিমটি কৃষি খাতে এবং দেশের কৃষকদের সামগ্রিক কল্যাণের প্রতি সরকারের প্রতিশ্রুতি প্রদর্শন করে।

প্রধানমন্ত্রী কিষাণ স্কিম কৃষিক্ষেত্রকে সমর্থন এবং কৃষকদের মর্যাদা উন্নীত করার জন্য সরকারের প্রচেষ্টার একটি উল্লেখযোগ্য মাইলফলক চিহ্নিত করে৷ প্রকল্পটির লক্ষ্য ক্ষুদ্র ও প্রান্তিক কৃষকদের সরাসরি আর্থিক সহায়তা প্রদানের মাধ্যমে কিছু আর্থিক বোঝা থেকে মুক্তি দেওয়া। যাইহোক, এর প্রভাব সর্বাধিক করার জন্য সুবিধাভোগী সনাক্তকরনে ক্রমাগত উন্নতি প্রয়োজন।

প্রধানমন্ত্রী কিষাণ প্রকল্পের মূল উদ্দেশ্য:

Advertisement

প্রধানমন্ত্রী কিষাণ (PM-Kisan) প্রকল্পের প্রাথমিক উদ্দেশ্য হল সারা দেশে সমস্ত কৃষক পরিবারকে আর্থিক সহায়তা প্রদান করা। এই সহায়তার লক্ষ্য কৃষকদের তাদের কৃষি এবং গার্হস্থ্য উভয় চাহিদা মেটাতে সহায়তা করার পাশাপাশি কৃষি উপকরণের আর্থিক চাহিদাও পরিচালনা করা।

প্রকল্পটির কয়েকটি বিশেষ বৈশিষ্ট্য:

আর্থিক সুবিধা: যোগ্য কৃষক পরিবার প্রতি বছর ৬০০০ টাকার আর্থিক সুবিধা পাওয়ার অধিকারী। মোট টাকা প্রতি চার মাসে ২০০০টাকার তিনটি সমান কিস্তিতে বিতরণ করা হয়।

যোগ্যতার মানদণ্ড: এই প্রকল্পটি সমস্ত ভূমিধারী কৃষক পরিবারকে কভার করে, তাদের জমির আকার নির্বিশেষে, প্রাতিষ্ঠানিক জমির মালিক এবং উচ্চ-আয়-সম্পন্ন ব্যক্তিদের বাদ দিয়ে।

সরাসরি বেনিফিট হস্তান্তর: তহবিলগুলি সরাসরি সুবিধাভোগীদের ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টে স্থানান্তরিত করা হয়, যা বিতরণ প্রক্রিয়ার স্বচ্ছতা নিশ্চিত করে৷

দেশব্যাপী নাগাল: প্রকল্পটির একটি দেশব্যাপী বাস্তবায়ন রয়েছে, বিশেষ করে ক্ষুদ্র ও প্রান্তিক কৃষকদের লক্ষ্য করে।

প্রকল্পটির কয়েকটি বিশেষ তাৎপর্য এবং প্রভাব:

আর্থিক সহায়তা: প্রধানমন্ত্রী কিষাণ প্রকল্প ক্ষুদ্র ও প্রান্তিক কৃষকদেরকে গুরুত্বপূর্ণ আর্থিক সহায়তা প্রদান করে, তাদের কৃষি ও পরিবারের খরচ মেটাতে সাহায্য করে।

গ্রামীণ অর্থনীতিকে চাঙ্গা করা: এই প্রকল্পের মাধ্যমে গ্রামীণ অর্থনীতিতে সরাসরি তহবিল প্রবেশ করিয়ে গ্রামীণ ব্যবহার এবং সামগ্রিক অর্থনৈতিক কার্যকলাপকে উদ্দীপিত করে।

সহজ অ্যাক্সেস: সরাসরি ব্যাঙ্ক ট্রান্সফারের মাধ্যমে স্কিমটি বাস্তবায়ন করে, উদ্দেশ্যপ্রণোদিত সুবিধাভোগীরা কোনো মধ্যস্থতাকারী ছাড়াই সুবিধা পান।

প্রধানমন্ত্রী কিষাণ স্কিম যোগ্যতা:

উদ্দেশ্যপ্রণোদিত প্রাপকরা প্রধানমন্ত্রী কিষাণ প্রকল্পের অধীনে সুবিধাগুলি পান তা নিশ্চিত করার জন্য, নির্দিষ্ট যোগ্যতার মানদণ্ড স্থাপন করা হয়েছে। যোগ্যতার মূল বিষয়গুলির মধ্যে রয়েছে:

  • জমির মালিক কৃষক: প্রকল্পটি সংশ্লিষ্ট রাজ্য বা কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলের জমির রেকর্ড অনুযায়ী সমস্ত জমিধারী কৃষক পরিবারের জন্য উন্মুক্ত।
  • পারিবারিক ইউনিট: স্বামী, স্ত্রী এবং নাবালক সন্তান সহ সমগ্র পরিবারকে সুবিধা প্রদান করা হয়।
  • বর্জন: এই স্কিমটি কিছু বিভাগকে বাদ দেয়, যেমন প্রাতিষ্ঠানিক জমিদার এবং উচ্চ আয়ের পদে অধিষ্ঠিত ব্যক্তি।

পিএম-কিষাণ কিভাবে আবেদন করবেন ?

পিএম কিষাণ স্কিমের জন্য অনলাইন রেজিস্ট্রেশন প্রক্রিয়াটি নিম্নরূপ:

  • প্রথমে আপনাকে অফিসিয়াল পোর্টাল, https://pmkisan.gov.in/ ভিজিট করতে হবে।
  • এরপর হোমপেজে “নতুন কৃষক নিবন্ধন” এ ক্লিক করুন।
  • আপনার ফোন নম্বর লিখুন এবং ‘এগিয়ে যান’ অপশনে ক্লিক করুন।
  • এরপর আপনার সমস্ত নথি আপলোড করুন।
  • আপনি পিএম-কিষান স্কিম রেজিস্ট্রেশন ফর্মে যে সমস্ত বিবরণ পূরণ করেছেন তা ক্রস-চেক করুন।
  • অবশেষে, ‘Apply ‘ বাটনে ক্লিক করুন।
  • একবার নতুন কৃষক হিসাবে আপনার নিবন্ধন সম্পন্ন করলে, আপনার জমা দেওয়া নিবন্ধন ফর্মের প্রিন্ট নিন এবং ভবিষ্যতে ব্যবহারের জন্য এটি আপনার কাছে রাখুন।

পিএম-কিষাণ ই-কেওয়াইসি কিভাবে করবেন ?

কোনও মধ্যস্থতাকারী ছাড়াই পিএম-কিষাণ প্রকল্পের সুবিধা কাঙ্খিত সুবিধাভোগীরা তাদের আধার সিডেড ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টে পৌঁছানো নিশ্চিত করতে ই-কেওয়াইসি বাধ্যতা মূলক।

ই-কেওয়াইসি মোড: পিএম-কিষাণ স্কিমের কৃষকদের জন্য ই-কেওয়াইসি করার নিম্নলিখিত তিনটি মোড উপলব্ধ রয়েছে:

(১) ওটিপি ভিত্তিক ই-কেওয়াইসি (পিএম-কিষান পোর্টাল এবং মোবাইল অ্যাপে উপলব্ধ)।

(২) বায়োমেট্রিক ভিত্তিক ই-কেওয়াইসি (কমন সার্ভিস সেন্টারে (সিএসসি) পাওয়া যায় এবং রাজ্য সেবা কেন্দ্রতে)।

(৩) মুখের প্রমাণীকরণ-ভিত্তিক ই-কেওয়াইসি (পিএম-কিষান মোবাইল অ্যাপে উপলব্ধ)।

আপনার পিএম-কিষাণ অবস্থা কিভাবে জানবেন ?

২০২৪ সালে আপনার পিএম-কিষাণ স্থিতি পরীক্ষা করতে, প্রয়োজনে এই সহজ পদক্ষেপগুলি অনুসরণ করুন:

প্রথমত: আপনার ওয়েব ব্রাউজারের ঠিকানা সার্চবারে pmkisan.gov.in টাইপ করে অফিসিয়াল পিএম-কিষান পোর্টালে প্রবেশ করুন।

দ্বিতীয়ত: হোমপেজে, “কৃষক কর্নার” বিভাগটি সন্ধান করুন।

তৃতীয়ত: আপনার আবেদনের স্থিতি পরীক্ষা করতে “আপনার স্থিতি জানুন” বিকল্পে ক্লিক করুন৷ এরপর প্রয়োজনীয় তথ্য হিসেবে আপনার আবেদন নম্বর, আধার নম্বর, আপনার নম্বর বা মোবাইল নম্বর লিখুন।

সবার শেষে: আপনার বিবরণ জমা দিতে “গেট ডেটা” বোতামে ক্লিক করুন। আপনাকে অর্থপ্রদানের স্থিতি এবং সুবিধাভোগী স্থিতি সহ আপনার প্রধানমন্ত্রী কিষান স্ট্যাটাস দেখানো হবে।

পিএম-কিষাণ ১৬তম কিস্তির তারিখ:

পিএম-কিষাণ স্কিমের ১৬ তম কিস্তি ফেব্রুয়ারী এবং মার্চ ২০২৪ এর মধ্যে দেওয়া হবে বলে অনুমান করা হয়েছে। যদিও সরকার পরবর্তী কিস্তির জন্য আনুষ্ঠানিক তারিখ ঘোষণা করেনি, বিভিন্ন উত্স পূর্ববর্তী নিদর্শন এবং ঘোষণাগুলির উপর ভিত্তি করে সময়সীমা অনুমান করা হয়েছে।

প্রধানমন্ত্রী কিষান প্রকল্প ভারতের ক্ষুদ্র ও প্রান্তিক কৃষকদের আর্থিক সহায়তা প্রদানে একটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। সরাসরি বেনিফিট হস্তান্তর বাস্তবায়ন এবং আরও ভাল সুবিধাভোগী সনাক্তকরণের জন্য প্রচেষ্টার মাধ্যমে, এই প্রকল্পের লক্ষ্য কৃষকদের আর্থিক অবস্থার উন্নতি করা এবং কৃষি খাতের সামগ্রিক বৃদ্ধিতে অবদান রাখা।

বেশ কিছু চ্যালেঞ্জ এবং সমালোচনা:

যদিও পিএম-কিষাণ প্রকল্পের যোগ্যতা রয়েছে, সেখানে কিছু চ্যালেঞ্জ এবং সমালোচনা রয়েছে যা সমাধান করা দরকার:

সুবিধাভোগীদের সনাক্তকরণ: যোগ্য কৃষক পরিবারগুলির সঠিক সনাক্তকরণ করা একটি চ্যালেঞ্জ রয়ে গেছে, যা যোগ্য সুবিধাভোগীদের বাদ পড়ার বিষয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করে।

জমির মালিকানার রেকর্ড: পুরানো বা অস্পষ্ট জমির মালিকানা রেকর্ড সুবিধাভোগী শনাক্তকরণ প্রক্রিয়াকে জটিল করে তুলতে পারে।

Leave a Comment